,

বারবনিতা : মোঃ আদিল মাহমুদ

কবিতা–“বারবনিতা”
মোঃ আদিল মাহমুদ

বেশ্যাবৃত্তি যদিও “পাপ,পন্ডিতের দেখতে হবে তার
নিহিত ধাপ,
নিয়ত থাকে একঘেয়েমি ‘চলন, প্রাণে থাকে না যে
কোন পবন।
শুধু পোহাতে হয়,পাতকের তাপ,চতুর্দিকে দৃশ্যমান
অসিত সাপ,
জীবন তাদের ভালোবাসা” বিহীন, ভবিষ্যৎ তাদের
নিত্য গহীন।

পতিতারা মানুষ, নয়তো বসুন্ধরা”র অভিশাপ,
তারা পরিস্থিতির শিকার,করেনি কোনো পাপ।
কেউ বা জড়িয়েছে, ভালোবাসা”র প্রতারণায়,
অনেকে নিজের অমতে, অপ্রাচুর্যের তাড়নায়।

হতভাগিনীরা কারো কন্যা, আবার কার আপা,
যন্ত্রণায় ভেঙ্গে যায় বুক, তবু থাকতে হয় চাপা।
তাদের আছে ভাই-বোন, আছে আম্মা ও বাবা,
মুক্ত করে, বন্ধ করো অসাধুদের ‘কড়াল থাবা।

পতিতাবৃত্তি আপদ, দায়িক সমাজ,
দৈবজ্ঞ বলে অশ্লীল, ললাটের সাজ।
ভাবুক হরেক কেনো, ছিন্ন মুমতাজ!
গণিকা নিষ্পিত দায়ী, ভন্ড যুবরাজ।
কপটতার শিকার, শশী নিরুপায়,
ব্যর্থ প্রণয় রেখেছে, অন্যের দয়ায়।
নিত্য পথভ্রষ্ট শুধু, দৈন্য তাড়নায়,
পাপীদের লোভে সতী, কুলটা ধরায়।

বারবনিতা কাতর, জানে সর্বজন,
বিপদগ্রস্ত বহিন, পুষ্প ভাঙ্গা মন।
দায়িত্ব হবে উদ্ধার, আবশ্যক মান,
ফুলের আছে বাবা-মা, বিধাতার দান।
শঠ চিত্তে ধৃত দৈব, নিত্য লোকসান,
কর্তব্য পূর্ণ মাত্রায়, পৃথ্বীতে সম্মান।

এক একজন পতিতা, লিখতে গেলে এক একটা
কবিতা,
প্রত্যেকে বুঝে সততা, তারা জনের অংশ, আছে
মমতা।
তাদের সুস্থ’ জীবনে এগিয়ে আনার, প্রধান অস্ত্র
জনতা,
এ মহৎ কর্ম পরিচালনা করতে,গড়ে তুলতে হবে
একতা।

লেখক -ঃ ইন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*