,

টেকনাফে বেকারী গুলোতে তৈরী হচ্ছে মানহীন পণ্য : প্যাকেটে নেই উৎপাদন ও মেয়াদ উত্তীর্ণের তারিখ

ষ্টাফ রিপোটার্স, টেকনাফ::
কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার পৌর শহর ও ছোটবড় বিভিন্ন ষ্টেশনে গড়ে উঠেছে বেকারীর কারখানা। এসব বেকারীর কারখানা গুলোতে অস্বাস্থ্যকর ও নোংরা পরিবেশে তৈরিকৃত খাবার পুরো উপজেলায় সরবরাহ করে দেদারছে বিক্রি হচ্ছে। বিশেষ করে বিস্কুট, কেক, বন, পাউরুটি, চনাচুরসহ নানা ধরনের বেকারী যাবতীয় পণ্য সেখানে বানানো হয়। তা সকল শ্রেণীর মানুষ খাওয়ার জন্য কিনে নিয়ে যায়। বাসা বাড়িতে হঠাৎ করে আত্মীয়-স্বজনরা এলে এসব খাবার পরিবেশন করা হয়। শিশুদের পছন্দের খাবার হিসেবেও বেকারীর খাবার সবার প্রিয়। কারখানা থেকে প্রত্যান্ত অঞ্চলে প্রতিদিন পৌঁছে যায় এসব খাবার। ফলে মানুষ স্বাস্থ্যকর মনে করে এসব বেকারীর খাবার খেয়ে থাকেন। কেউ কি কখনও ভেবে দেখেছেন. এসব খাবারগুলো কোথায় এবং কিভাবে তৈরি হচ্ছে? এসব বেকারীর তৈরী নাস্তা ও খাবার খেয়ে অনেকে অসুস্থ হয়ে পড়ার অভিযোগ রয়েছে।
তাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে- বেকারী গুলোতে নেই বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস এন্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউশন (বিএসটিআই)’র সনদ, নেই কোন বৈধ কাগজপত্র। এভাবে অবৈধভাবে গড়ে উঠা নামে বেনামে কারখানা গুলোর বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কোন অভিযান চলতেও দেখা যায়নি বহুদিন ধরে। ফলে যত্রতত্র গড়ে উঠছে কারখানা।
সরেজমিন পরিদর্শন ও অনুসন্ধানে করে জানা যায়, টেকনাফের বেকারী গুলোতে নিয়ম না মেনে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে নিম্নমানের উপকরণ দিয়ে তৈরি করছে এসব পণ্য। খাদ্য তৈরী করার পাত্রগুলো অপরিষ্কার। যার মধ্যে মাছিসহ বিভিন্ন পোকামাকড় ধুলাবালি লক্ষ্য করা গেছে। বেকারীর মালিকরা তাদের নিজস্ব ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের পণ্যের পেকেট ব্যবহার না করে বাইরে থেকে ক্রয়কৃত প্যাকেট ব্যবহার করছেন।
এসব খাবারের প্যাকেটে নেই কোন উৎপাদন, মেয়াদ উত্তীর্ণের তারিখ ও মূল্য তালিকা। বিস্কুট কেজি হিসেবে এবং কেক ও বন রুটি বিক্রি হয় পিস হিসেবে। খুব ভোরে পর পরই ভ্যানযোগে বিভিন্ন এলাকার পাড়া মহল্লায়, অলিগলির জেনারেল স্টোর ও চায়ের দোকানে এসব পণ্য পৌঁছে দেন ডেলিভারিম্যানরা।
টেকনাফ পৌরসভার নাইট্যং পাড়ার বিসমিল্লাহ ফুডস এন্ড জে এস ফুড, লেংগুর বিল রোডের বিজিবি ক্যাম্পের পূর্ব পাশে একতা ফুডস এন্ড বেকারী, হাইস্কুল রোডের কুমিল্লা বেকারী এন্ড ন্যাশনাল ফুডস, বাহার ছড়া শামলাপুরে বিছমিল্লাহ বেকারী, মায়ের দোয়া বেকারী, সুমন বেকার, টেকনাফ সদরের তুলাতলী সোনার বাংলা বেকারী ও টেকনাফ ডেইল পাড়াসহ প্রায় বেকারীগুলোসহ সব কারখানা গুলোতে বিএসটিআইর কোন নিয়মনীতি তোয়াক্কা করা হয় না। রাতদিন চলে অস্ব্যাস্থকর ও নোংরা পরিবেশে বিভিন্ন আইটেমের নাস্তা ও খাদ্যদ্রব্য তৈরী। এছাড়া রোহিঙ্গা শ্রমিক ব্যবহার করছে।
পুড়া, বাসী তৈল, স্বাস্থ্যে ক্ষতিকর ক্যামিকেল মিশিয়ে পাউরুটি, বিস্কুট, চানাচুর, ইত্যাদি ময়দা দিয়ে তৈরী করে টেকনাফ উপজেলা বিভিন্ন প্রান্তে নাামি দামি দোকানে প্রতিনিয়ত সরবরাহ করছে। উক্ত খাবার খেলে মানবদেহের বিভিন্ন ধরনের রোগব্যধি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সচেতন মহলের দাবি শীঘ্্রই অভিযান পরিচালনা করে উক্ত অস্বাস্থ্যকর খাবারের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক।
এছাড়াও নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের অনুমোদনের ব্যাপারে জানা নেই তাদের। অনুমোদনহীন খাবারের সঙ্গে বেকিং পাউডার, ইষ্ট ও অ্যামোনিয়াসহ স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক দ্রব্য ব্যবহার করা হয়। বেকারী মালিকরা জানান, এসব দ্রব্য ছাড়া বেকারীর পণ্য তৈরী করা যায়না।
টেকনাফ সদর ইউনিয়নের তুলাতলী এলাকায় থাকা সোনার বাংলা বেকারীর পরিচালক আনিস মিয়া’র সাথে কথা হলে তিনি জানান তাদের বেকারীর অনুমোদনের কোন কাগজপত্র নেই। মালিক কে জানতে চাইলে বলেন মালিক ঢাকায় থাকেন। তিনি এখানে মালিকের প্রতিনিধি হয়ে কাজ করেন।
টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ সাইফুল ইসলাম জানান, বেকারী কারখানায় মেয়াদোত্তীর্ণ, লেবেল বিহীন প্যাকেট, অনুমোদন বিহীন ক্ষতিকারক কোন দ্রব্য ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ পাওয়া গেলে আইনে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. টিটু চন্দ্র শীল বলেন, স্বাস্থ্যের ক্ষতিকর এমন কোন ক্যমিক্যাল ও অ্যামোনিয়া খাবারের সঙ্গে ব্যবহার করা যাবে না। খাদ্য উৎপাদনে সময় মাথায় ক্যাপ ও হাত ভালোভাবে পরিস্কার করতে হবে।
টেকনাফ স্যানেটারী ইন্সপেক্টর সোহরাব হোসাইন জানান, বোকরীগুলোতে স্বাস্থ্য সম্মত পরিবেশে খাবার তেরী ও বিএসটিআইর নীয়মাবলী মেনে খাদ্যদ্রব্য তৈরী করতে বারবার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। যারা নির্দেশনা মানছে না, তাদের বিরুদ্ধে নোটিশ জারী করে শীগ্রই আইনী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*