,

টেকনাফের ফিরোজ ও ইসমাঈলের সকল ব্যাংক একাউন্ট জব্দের নির্দেশ

মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :
টেকনাফের ফিরোজ আহমেদ ও মোহাম্মদ ইসমাঈলর সকল ব্যাংক একাউন্ট জব্দের নির্দেশ দিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক গোয়েন্দা ইউনিট (Bangladesh financial intelligence unit-বিএফআইইউ)। গত ১২ জুলাই ইস্যুকৃত এক চিঠিতে টেকনাফের ফিরোজ আহমেদ ও মোহাম্মদ ইসমাঈল সহ দেশের মোট ২১ জনের ব্যাংক হিসাব সংক্রান্ত সকল তথ্য তলব ও ৩০ দিনের জন‌্য তাদের অ‌্যাকাউন্ট জব্দের নির্দেশ দেওয়া হয়। ব‌্যাংকগুলোতে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়েছে, সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের নামে কোনো হিসাব থাকলে তার কাগজপত্র, হিসাব খোলার ফরমসহ বিস্তারিত তথ্য বিএফআইউ-তে পাঠাতে হবে। ফিরোজ আহমেদ কক্সবাজার জেলার টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপের ডাংগার পাড়ার বাসিন্দা ও মোহাম্মদ ইসমাঈল বাজার পাড়ার বাসিন্দা।

এসব ব‌্যক্তির নামে থাকা হিসাবের বিস্তারিত তথ্য চেয়ে দেশের সব ব্যাংকে চিঠি দেয়া হয়েছে। সন্দেহজনক অর্থ পাচারে জড়িত থাকার অভিযোগে এই ২১ জনের ব্যাংক হিসাব জব্দ করার নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের আর্থিক গোয়েন্দা ইউনিট (বিএফআইইউ)।

এছাড়া তাদের বিরুদ্ধে সন্দেহজনক লেনদেন, হিসাবের তথ্যে গরমিল, প্রতারণা ও অর্থপাচারের সঙ্গে প্রাথমিকভাবে সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ মিলেছে। চিঠিতে বলা হয়েছে, পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত সন্দেহজনক এ ২১ ব্যক্তি তাদের অ‌্যাকাউন্ট থেকে কোনো অর্থ উত্তোলন করতে পারবেন না। এমনকি ওই টাকা ব্যাংকে গচ্ছিত রেখে ব্যবহারও করতে পারবেন না। এছাড়া, এসব অ‌্যাকাউন্টে কোনো আর্থিক সুবিধাও জমা করা যাবে না।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর ও আর্থিক গোয়েন্দা ইউনিটের (বিএফআইইউ) প্রধান আবু হেনা মোহাম্মদ রাজী হাসান এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘সন্দেহজনক লেনদেন খতিয়ে দেখা বিএফআইইউর রুটিনওয়ার্ক। এই ২১ জনের লেনদেন সন্দেহজনক মনে হয়েছে। একাধিক শাখাকেও এ বিষয়ে জানানো হয়েছে। তার আলোকেই তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে।

বিএফআইইউ’র সন্দেহভাজন ব্যক্তিরা হলেন-কক্সবাজার জেলার টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপের ডাংগার পাড়ার ফিরোজ আহমেদ, বাজারপাড়ার মোহাম্মদ ইসমাঈল, ফরিদপুর জেলার কোতোয়ালী থানার ব্রাহ্মণকান্দার সাজ্জাদ হোসেন ওরফে বরকত ওরফে বরকত মন্ডল ওরফে চৌধুরী বরকত ইবনে সালাম, তার ভাই মো. ইমতিয়াজ হোসেন রুবেল, সাজ্জাদ হোসেন বরকতের স্ত্রী আফরোজা আক্তার পারভীন, মো. ইমতিয়াজ হোসেন রুবেলের স্ত্রী সোহেলী ইমরোজ পুনম ও ফরিদপুরের শিবরামপুরের বাসিন্দা রেজাউল করিম পান্না। দিনাজপুর জেলার কোতোয়ালী থানার সুইহার কালিতলার বাসিন্দা আব্দুস সাদেক মুকুল, মো. শহীদুল আলম, শাহিন আক্তার, আদুরী বেগম, মো. রাজ্জাক, মো. নজরুল ইসলাম, মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম, মো. ফাহিম আমিন, মো. মাজহারুল ইসলাম ও মাইসুম মনিরা। নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা মডেল থানার ৯নং কুতুবপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ শিয়াচর বাসিন্দা মাসুম ওরফে কাইল্লা মাসুম, মাদারীপুরের সদর থানার টেরবাগড়ী বেপারী পাড়ার বাসিন্দা মো. মামুন বেপারী, ড. মো. সিব্বির আহমেদ ওসমানী ও মো. শহিদুজ্জামান।

উখিয়া নিউজ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*