,

টেকনাফে বন্দুক যুদ্ধে “চারজন নিহত” : করোনার ফাঁকে পালিয়ে থাকা মাদক ও মানব পাচারকারীরা এলাকায় ফিরছে….

মুহাম্মদ জুবাইর, ::
আইন শৃংখলা বাহিনীর করোনা সংক্রমণ রোধে জনসচেতনতা কাজে ব্যস্থ থাকার সুবাদে ফের বেপরোয়া হয়ে উঠছে মাদক, মানব পাচারকারীরা। এরই সুযোগে সীমান্তের বিভিন্ন পয়েন্ট ভিত্তিক মাদক ও মানব পাচার সিন্ডিকেট মিয়ানমার হতে বিপুল পরিমাণ ইয়াবা পাচারের অপেক্ষায় রয়েছে এমন খবর রয়েছে। অপরদিকে পালিয়ে থাকা ইয়াবা ও মানব পাচার গডফাররা এলাকায় ফিরছে বলে স্থানীয় সচেতন মহলরা জানিয়েছেন। এনিয়ে সংশ্লিষ্ট এলাকায় ফের ইয়াবা ও মানবপাচার বেড়ে যাবার আশংকা করছেন স্থানীয়মহল। এই মাঝে কক্সবাজারের টেকনাফে বিজিবি ও পুলিশের সঙ্গে পৃথক ‘বন্দুকযুদ্ধে’র ঘটনা ও ঘটেছে। এসব ঘটনায় চারজন নিহত হয়েছেন। শুক্রবার দিবাগতরাতে এসব ঘটনা ঘটে। এদের মধ্যে বিজিবির সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে অজ্ঞাত তিনজন ও পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে একজন। তারা সকলেই মাদক পাচার কাজে জড়িত বলে জানায়।
টেকনাফ ২ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল মোহাম্মদ ফয়সল হাসান
খান জানান, ২৭ মার্চ (শুক্রবার) দিবাগত রাতে মিয়ানমার থেকে একটি ইয়াবার বড় চালান টেকনাফ সীমান্ত দিয়ে প্রবেশ করছে, এমন গোপন সংবাদের খবরে বিজিবির একটি বিশেষ টিম টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের লেদার ছ্যুরিখাল নামক এলাকায় নিকটস্থ নাফনদী এলাকায় অবস্থান নেয়। এসময় একটি নৌকায় ৪-৫ জন লোক ওই এলকা দিয়ে প্রবেশ করে। তাদের দেখে সন্দেহ হলে চ্যালেঞ্জ করলে বিজিবি’র উপস্থিতি টের পেয়ে স্বশস্ত্র ইয়াবা পাচারকারীরা বিজিবিকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। এতে বিজিবির তিন সদস্য আহত হন।
তিনি আরও জানান, পরে বিজিবিও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালায়। এক পর্যায়ে ইয়াবা পাচারকারীরা গুলি করতে করতে নৌকা থেকে লাফ দিয়ে কেওড়া বাগানের দিকে পালিয়ে যায়। পরে ওই এলাকা থেকে ইয়াবা ও অস্ত্রসহ গুলিবিদ্ধ অবস্থায় অজ্ঞাত তিনজনকে উদ্ধার করে টেকনাফ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠায়। সেখানে চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনাস্থল থেকে ১ লাখ ৮০ হাজার পিস ইয়াবা, দুটি দেশীয় তৈরি বন্ধুক, ২ রাউন্ড তাজা কার্তুজ, ১টি গুলির খালি খোসা, ১টি ধারালো কিরিচ উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্ততি চলছে।
এদিকে একই রাতে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মুছা আকবর (৩৬) নামে আরও এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। তার বাড়ি টেকনাফের হোয়াইক্যংয়ের তুলাতুলী এলাকায়। এ ঘটনায় পুলিশের তিন সদস্য আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।
টেকনাফ থানার অফিসার ইনচার্জ প্রদীপ কুমার দাশ জানান, পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে লিপ্ত হলে পাল্টাপাল্টিগুলিতে একজন নিহত হয়। নিহত চারজনের মরদেহ কক্সবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*