,

নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল ধর্মনিরপেক্ষ ভারতের চরম সাম্প্রদায়িক চরিত্রের বহিঃপ্রকাশ -ইশা ছাত্র আন্দোলন

প্রেস বিজ্ঞপ্তি:

সাম্প্রতিক সময়ে ভারতের লোকসভায় পাশ হওয়া বিতর্কিত সিটিজেনশিপ অ্যামেন্ডেমন্ট বিল বা সিএবি (ক্যাব) নামে পরিচিত বিলটি সম্পূর্ণরূপে মুসলমানদের টার্গেট করেই করা হয়েছে। এমনকি এ বিলটি ভারতীয় সংবিধানের ১৪ নং অনুচ্ছেদেরও পরিপন্থী।
সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখতে চাইলে ভারত সরকারকে উক্ত বিল পূনঃবিবেচনা করতে হবে।

আজ ১২ ডিসেম্বর’১৯ ইং বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় এক বিবৃতিতে উপরোক্ত কথা বলেন ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন-এর কেন্দ্রীয় সভাপতি এম. হাছিবুল ইসলাম। তিনি বলেন, সিএবি বিলের মাধ্যমে ভারতে বসবাসরত মুসলমানদের শোষণের আরেকটি দ্বার উন্মোচন করা হয়েছে। যেখানে নাগরিকত্ব আইনে ভারতের নাগরিকত্ব পাওয়ার জন্য ১২ মাস টানা ভারতে থাকার নিয়মের সঙ্গে বিগত ১৪ বছরের মধ্যে ১১ বছর ভারতবাস জরুরি ছিল। সেখানে শুধুমাত্র হিন্দু, শিখ, বৌদ্ধ, জৈন, পারসি এবং খ্রিষ্টানদের নাগরিকত্ব নিশ্চিত করার জন্য সময়কালটিকে নামিয়ে আনা হচ্ছে ৬ বছরে।

ক্যাব বিল সম্পর্কে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ’র বক্তব্য- “পাশের মুসলিম রাষ্ট্রগুলো থেকে নির্যাতিত হয়ে আসা অমুসলিমদের নাগরিকত্ব দেয়ার জন্যই এ বিল” এর ব্যাপারে আপত্তি জানিয়ে হাছিবুল ইসলাম বলেন, ভারত যদি এতটাই মানবতাবাদী হয়ে থাকে তবে মিয়ানমার সরকারের হত্যাযজ্ঞ থেকে আশ্রয় পেতে যেসব রোহিঙ্গা ভারতে প্রবেশ করেছিল তাদের কেন তারা বের করে দিয়েছিল? এটা স্পষ্টতই মুসলমানদের কোনঠাসা করে রাখার কুপরিকল্পনার বহিঃপ্রকাশ।

ভারতে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি অটুট রাখতে এবং সংবিধানের আলোকে সমতাবিধান প্রতিষ্ঠিত রাখতে উক্ত বিল পুনঃবিবেচনা করে মুসলমানদেরকেও এর আওতায় রাখার জন্য ভারত সরকারের প্রতি আহবান জানান তিনি।

 

বার্তা প্রেরক
কে এম শরীয়াতুল্লাহ
কেন্দ্রীয় প্রচার ও আন্তর্জাতিক সম্পাদক
ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*