,

আইন-শৃংখলা পরিপন্থী কাজে সম্পৃক্ত হওয়া এবং স্থানীয় শ্রমবাজার দখলে নিয়ে স্থানীয় বেশীর ভাগ মানুষকে বেকারত্বে ফেলে দেওয়া হয়েছে– রোহিঙ্গা সমস্যা শীর্ষক গোল টেবিল আলোচনায় বক্তারা

আমান উল্লাহ কবির ::  

রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের ফলে স্থানীয় মানুষের জীবনে সৃষ্ট সংকট এবং তা সমাধানের উপায় বের করার জন্য প্রাক্তন ছাত্র পরিষদ হ্নীলা উচ্চ বিদ্যালয়ের উদ্যোগে “রোহিঙ্গা সমস্যা : কক্সবাজারবাসী তথা রাষ্ট্রের করণীয়” শীর্ষক এক গোলটেবিল আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, রোহিঙ্গাদের নিয়ে আন্তর্জাতিক রাজনৈতিক আধিপত্য বিস্তার চলছে। বাংলাদেশ একটি ক্ষুদ্র দেশ এবং কতিপয় বিশ্ব মোড়লদের সমকক্ষ না হওয়ায় পরিকল্পিতভাবে সৃষ্ট এই রোহিঙ্গা সংকট বাংলাদেশের উপরে চেপে দেওয়া হয়েছে। জাতীয় ও বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মানবিক সহায়তা সংস্থা রোহিঙ্গাদের পাশাপাশি স্থানীয়দের বিশেষ কোটানুসারে সহায়তা দেওয়ার কথা থাকলেও অনেক ক্ষেত্রে তা বাস্তবায়িত হয়না। অনেক রোহিঙ্গা কৌশলে জাতীয়তার সনদ গ্রহণ করে বিদেশ পাড়ি দিচ্ছে আবার অনেকে শরণার্থী হয়েও কোটি কোটি টাকার অবৈধ বাণিজ্য করছে। রোহিঙ্গাদের অবাধ চলাফেরা, আইন-শৃংখলা পরিপন্থী কাজে সম্পৃক্ত হওয়া এবং স্থানীয় শ্রমবাজার দখলে নিয়ে স্থানীয় বেশীর ভাগ মানুষকে বেকারত্বে ফেলে দেওয়া হয়েছে। কতিপয় আন্তর্জাতিক ও জাতীয় মানবিক সহায়তা সংস্থা বিশ^ রাজনীতির গ্যাড়াঁকলে ফেলে ঘোলা পানিতে মাছ শিকারে ব্যস্থ থাকায় গত বছর রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের যাতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন হওয়ার পরও কতিপয় এনজিও সংস্থার গোপন উস্কানিতে তা ব্যাহত হয়। আমরা বিশ্ব রাজনীতির বলীর পাঠা না হয়ে রক্ত দিয়ে পাওয়া স্বাধীন দেশে বাঙ্গালীর ঐতিহ্য ধারণ করে সুখে-শান্তিতে বসববাস করতে চায়।

বেশ কয়েক দফায় দেশে এই রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের ফলে উখিয়া-টেকনাফের স্থানীয় জনগোষ্ঠীর ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ ও প্রতিকার, নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার, রোহিঙ্গাদের পেরোয়া চলাচল নিয়ন্ত্রণ করে স্থানীয়দের জন্য শ্রম বাজার উদ্ধার, যাতায়াত ভোগান্তির অবসান, রোহিঙ্গাদের নির্দিষ্ট স্থানে রাখা ও তাদের বাংলাদেশী ভাষায় উচ্চ শিক্ষিত না করে বরং ইংরেজী এবং বর্মী ভাষী শিক্ষা ব্যবস্থা চালু করলে তারা দেশপ্রেম অনুপ্রাণিত হয়ে কর্মের জন্য হলেও সেদেশে ফিরে যেতে উৎসাহিত হয়ে উঠবে বলে মত প্রকাশ করা হয়। দেশের রাষ্ট্রীয় পলিসির সাথে সামঞ্জস্য রেখে রোহিঙ্গাদের দ্রুত স্বদেশে প্রত্যাবাসনের পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য সরকারের উর্ধ্বতন মহলের সুদৃষ্টি কামনা করা হয়।

১৪ আগষ্ট সকাল ১১টায় সংগঠনের সভাপতি আলা উদ্দিন রাসেলের সঞ্চালনায় হ্নীলা উচ্চ বিদ্যালয় হলরুমে অনুষ্ঠিত উম্মুক্ত গোলটেবিল আলোচনায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ডঃ ফরিদ উদ্দিন আহামেদ, চট্টগ্রাম সিএসসিআর হাসপাতালের এমডি ও গুহাফার প্রতিষ্ঠাতা ডাঃ জামাল আহমেদ,চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ইসলামিক স্টাডিজ ডিপার্টমেন্টের সহযোগী অধ্যাপক ডঃ মমতাজ উদ্দিন কাদেরী, ডঃ আমীর হোসাইন, চট্টগ্রাম সরকারি কমার্স কলেজের ইংরেজি বিভাগের প্রধান কামাল হোসাইন, হোয়াইক্যং মডেল ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ নুর আহমদ আনোয়ারী, প্রাক্তন ছাত্র পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি শহীদ উল্লাহ, হ্নীলা হাইস্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি মাহবুব মোরশেদ, সাংবাদিক জাবেদ ইকবাল চৌধুরী, হ্নীলা হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সালাম, এনজিও প্রতিনিধি জামাল সাদেক, হ্নীলা ৯নং ওয়ার্ড মেম্বার মোহাম্মদ আলীসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান ও শিক্ষকগণ,ব্যাংকার,সাংবাদিক,এনজিও কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক এবং বিভিন্ন স্তরের লোকজন আলোচনায় অংশ নেন। ##

মতামত...