,

অভাবের তাড়নায় হ্নীলায় এক সন্তানের জনক রাজমিস্ত্রীর আত্মহত্যা


ফরিদুল আলম, টেকনাফ:

টেকনাফের হ্নীলায় পারিবারিক কলহ ও অভাবের তাড়নায় অবশেষে এক সন্তানের জনক’র আত্মহত্যার খবর পাওয়া গেছে। সে হ্নীলা পশ্চিম সিকদার পাড়ার প্রবাসী নুরুল ইসলামের পুত্র আব্দুল আমিন (২৮) পেশায় রাজমিস্ত্রী।
সুত্রে জানা যায়, ১৩ এপ্রিল সকালে রাজমিস্ত্রী আবদুল আমিনের ব্যবহৃত মুঠোফোনে অনবরত কল আসে। দীর্ঘক্ষণ রিংটোন বাজার পর রিসিভ না করায় প্রতিবেশী সহোদর আব্দুর রহমান প্রকাশ সৈকত গিয়ে ডাকাডাকি করে। কোন সাড়া শব্দ না পেয়ে ঐ ঘরের জানালা ভেঙ্গে ঘরে ডুকে দেখে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় ঝুলন্ত দেখতে পায়। ভাই সৈকত এ দৃশ্য দেখে শৌর-চিৎকার শুনে মা-ভাই, বোন ও প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে ঝুলন্ত নিতরদেহটি নামিয়ে ফেলে। বিষয়টি তাৎক্ষণিক স্থানীয় ইউপি মেম্বার ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে অবহিত করা হয়। টেকনাফ মডেল থানার এসআই নুরুল ইসলাম সকাল ১১টায় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পারিবারিকভাবে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ না করায় প্রশাসনিকভাবে যাবতীয় কার্য্যক্রম সম্পন্ন করে দাফন করা হয়। দাম্পত্য জীবনের কলহ ওঅভাবের তাড়নায় অভিমানী হয়ে সে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আতœহত্যা করেছে এমন অভিযোগ শুনা যায়।
তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়,বিগত ৪ বছর পূর্বে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে পালিয়ে বিয়ে করেন পশ্চিম সিকদার পাড়ার প্রবাসী নুরুল ইসলামের পুত্র আব্দুল আমিন (২৮) এবং ঊলুচামরীর নুর মোহাম্মদ প্রকাশ নুরাইয়ার মেয়ে নুর আয়েশা (২২)কে । তাদের সংসারে মরিয়ম (৩) নামে একটি ফুটফুটে কন্যা সন্তান রয়েছে। বিয়েরপর থেকে স্ত্রীর চাহিদা পূরনে পরিবারের মধ্যে প্রায় সময় ঝগড়া লেগে থাকতো। স্থানীয় মহিলা মেম্বার তাদের একাধিকবার সালিশী বৈঠকও বসে। সম্প্রতি স্ত্রী নুর আয়েশা অসুস্থতার অজুহাতে স্বামীর সাথে রাত্রীযাপন বন্ধ করে দেন। যা নিয়ে প্রতিবেশীদের মধ্যে হাস্যরস কথা-বার্তায় ক্ষোভও দেখা গেছে। এনিয়ে ক্ষোভে অভিমানে আত্মহত্যার পথবেছে নিয়েছে বলে ধারনা করছেন এলাকাবাসী।
স্থানীয় মেম্বার জামাল উদ্দিন সংবাদের সত্যতা নিশ্চিত করে স্থানীয়দের বরাত দিয়ে জানান, পারিবারিক কলহে এই রাজমিস্ত্রি আতœহত্যার কথা প্রকাশ হলেও পারিবারিক অভিযোগ না থাকায় প্রশাসনের অনমতিক্রমে দাফনের ব্যবস্থা করা হয়েছে।
টেকনাফ মডেল থানার এসআই নুরুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে সুরতহাল রিপোর্ট তৈরী করে, কোন অভিযোগ না থাকায় প্রশাসনের উর্ধ্বতন মহলের নির্দেশনায় মৃতদেহ দাফনের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*