,

যুদ্ধজাহাজ ও পারমাণবিক সাবমেরিন মোতায়েন করেছে ভারত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
কাশ্মীরের পুলওয়ামায় আত্মঘাতী বোমা হামলার পর `আকাশযুদ্ধে’ জড়িয়ে পড়ে ভারত-পাকিস্তান। দেশ দুটির চলমান উত্তেজনার মধ্যে এবার সাগরে যুদ্ধের প্রস্তুতি হিসেবে বিশাল নৌমহড়া করেছে ভারত। ভারতের সমুদ্র উপকূলে অনির্দিষ্ট সংখ্যক রণতরীর মহড়া চালানো ও মোতায়েনের কথা নিশ্চিত করেছে দেশটির নৌবাহিনী।

রাশিয়ান সংবাদমাধ্যম আরটি নিউজের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, ভারতীয় নৌবাহিনীর এই এই বিশাল মহড়ায় অংশ নিয়েছে দেশটির বিমানবহনকারী রণতরী ও পারমাণবিক শক্তিসম্পন্ন সাবমেরিন। ভারতীয় নৌবাহিনীর মুখপাত্রও এক টুইট বার্তায় এমন মহড়ার কথা নিশ্চিত করেছেন।

আরটির প্রতিবেদনে ভারতের সামরিক বাহিনীর দেয়া এক বিবৃতির বরাত দিয়ে জানানো হয়েছে, রাশিয়ার তৈরি ভারতীয় নৌবাহিনীর বিমানবহনকারী রণতরী আইএনএস ‘বিক্রমাদিত্য’ এবং বেশ কয়েকটি পারমাণবিক ক্ষমতাসম্পন্ন সাবমেরিন অন্যান্য নৌযান ও বিমানের সঙ্গে মহড়ায় অংশ নিয়েছে।

দেশটির সামরিক বাহিনীর দেয়া ওই বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, ‘যেকোনো উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সমুদ্রপথে পাকিস্তানের আক্রমণ প্রতিরোধ, প্রতিহত ও পরাজিত করার লক্ষ্যে এমন নৌ মহড়া ও রণতরী মোতায়েন করেছে ভারত।’

ভারতের সবচেয়ে বড় সামরিক মহড়া ট্রপেক্স-২০১৯ এর আওতায় এমন অভিযান বলে জানিয়েছে সামরিকবাহিনী। ভারত তাদের নৌ, বিমান ও সেনাবাহিনীর সমন্বয়ে এই যৌথ মহড়া চালায়। দেশটির সামরিক বাহিনী বলছে, এমন প্রস্তুতি থাকলে তারা যেকোনো উদ্ভূত পরিস্থিতিতে অভিযান চালাতে সক্ষম হবে।

তবে ভারতের সামরিক বাহিনী দেয়া ওই বিবৃতিতে এসব রণতরী মোতায়েনের সময় সম্পর্কে কিছু জানানো হয়নি। তাছাড়া কোন কোন সাবমেরিন মোতায়েন করা হয়েছে সে বিষয়েও কিছু জানায়নি তারা। সেখানে তাদের কথা অনুযায়ী এমন দুটি সাবমেরিক রয়েছে দেশটির। একটি হলো রাশিয়ার কাছ থেকে ভাড়া করা আইএনএস ‘চক্র’ আক্রমণকারী সাবমেরিন। অন্যটি ১২টি ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র বহনে সক্ষম স্থানীয়ভাবে তৈরি সাবমেরিন আইএনএস ‘আরিহান্ট।’

তাছাড়া জানা গেছে, ভারত-পাকিস্তান উত্তেজনার মধ্যে দেশটি কিছু রণতরী মহড়া চালায়। চলতি মাসের শুরুতে ইসলামাবাদ দাবি করে পাকিস্তান নৌবাহিনী তাদের জলসীমায় পেরিস্কোপ ডেফতে একটি ভারতীয় সাবমেরিন চলাচল করতে দেখে। ভারত অবশ্য পাকিস্তানের এমন দাবিকে ‘প্রোপাগান্ডা’ হিসেবে অভিহিত করে তথ্যটি ভুল বলে জানায়।

মতামত...