,

সাবরাং দারুল উলূম মাদরাসা’য় নূরানী বিভাগে’র বিরল দৃষ্টান্ত


নিজস্ব প্রতিনিধি::
টেকনাফ উপজেলার সাবরাং দারুল উলূম বড় মাদরাসার নুরানী বিভাগের কেন্দ্রীয় সনদ পরীক্ষায় অভাবনীয় সাফল্য অজর্ন করে বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।
জানা যায়, উপজেলার সাবরাং দারুল উলূম বড় মাদরাসা ও এতিমখানার নুরানী বিভাগের শিক্ষার্থীরা ২০১৮সালের
নুরানী তা’লিমুল কোরআন বোর্ড চট্রগ্রাম বাংলাদেশ এর তত্ববধানে নুরানী কেন্দ্রীয় সনদ পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করেছিল ৪২ শিক্ষার্থী। তার মধ্যে মেধাতালিকায় ২জন,সহ গোল্ডেন এ প্লাস ৭জন, এ প্লাস ৩২জন এবং এ গ্রেড ৩জন পরীক্ষার্থীর সকলেই পাশ করে চমক সৃষ্টি করেছেন। একটি প্রতিষ্টান থেকে এত বেশী ‘এ+’ এবং শতভাগ পাস একটি বিরল ইতিহাস
৪২ শিক্ষার্থীর মধ্যে মেধা তালিকায় ৫ম ও ২০তম অধিকার করেছে ২শিক্ষার্থী। মেধা তালিকায় ২জনসহ‘গোল্ডেন এ+’ প্রাপ্ত ৭ শিক্ষার্থী হচ্ছে,মো. ফোরকান, মেধা তালিকা ৫ম ( রেজিঃ নং ৭২৫১২), আরফাত আলম, মেধা তালিকা ২০তম ( রেজিঃ নং ৭২৫১৫) ,জায়নাব বেগম ( রেজিঃ নং ৭২৫২৬),মো. রুহিত ( রেজিঃ নং ৭২৫১৬), রাবেয়া বসরী ( রেজিঃ নং ৭২৫২৪), হালিমা আক্তার ( রেজিঃ নং ৭২৫১৮), আরিফুল ইসলাম ( রেজিঃ নং ৭২৫১৪)।

৩২জন এ+’ প্রাপ্তরা হচ্ছে, মোঃ ফরহাদ ( রেজিঃ নং ৭২৫১৩), মিজানুর রহমান ( রেজিঃ নং ৭২৫১৭), মোঃ সফওয়ান ( রেজিঃ নং ৭২৫১৯), হুমাইরা আক্তার ( রেজিঃ নং ৭২৫২০), রমজান আলী ( রেজিঃ নং ৭২৫২১), ইসমত দোহা ( রেজিঃ নং ৭২৫২২), দেলোয়ার হোসেন ( রেজিঃ নং ৭২৫২৩), আবদুর রহিম ( রেজিঃ নং ৭২৫২৫), আফরোজা নুর আরশি( রেজিঃ নং ৭২৫২৭), সুজাইতুল ইসলাম ( রেজিঃ নং ৭২৫২৮), নাজমা আক্তার ( রেজিঃ নং ৭২৫২৯), নুর কায়েস ( রেজিঃ নং ৭২৫৩০), আমিরা ( রেজিঃ নং ৭২৫৩১), ইসরান ( রেজিঃ নং ৭২৫৩২),
শহিদ উল্লাহ ( রেজিঃ নং ৭২৫৩৩), ছুরাইয়া ছিদ্দিকা ( রেজিঃ নং ৭২৫৩৪), মিজানুর রহমান ( রেজিঃ নং ৭২৫৩৫), রেজাউল করিম ( রেজিঃ নং ৭২৫৩৭), আফিফা আক্তার ( রেজিঃ নং ৭২৫৩৮), মোঃ রাসেল ( রেজিঃ নং ৭২৫৩৯),
মহিমা আক্তার ( রেজিঃ নং ৭২৫৪০), শাকিলুর রহমান ( রেজিঃ নং ৭২৫৪১), মুহিত কামাল ( রেজিঃ নং ৭২৫৪২),
জালাল আহমদ ( রেজিঃ নং ৭২৫৪৩), মুন্নি আক্তার ( রেজিঃ নং ৭২৫৪৪), মো. ইউছুফ ( রেজিঃ নং ৭২৫৪৫), রায়হান আলম ( রেজিঃ নং ৭২৫৪৭), এনাম উল্লাহ ( রেজিঃ নং ৭২৫৪৮), রিফা আক্তার ( রেজিঃ নং ৭২৫৪৯), হাবিব উল্লাহ ( রেজিঃ নং ৭২৫৫০), মোঃ আরফাত ( রেজিঃ নং ৭২৫৫১), রাশেদা আক্তার ( রেজিঃ নং ৭২৫৫২)।
এ গ্রেড প্রাপ্তরা হচ্ছে, নুরশাহাদ ( রেজিঃ নং ৭২৫৩৬), ছুমাইয়া আক্তার ( রেজিঃ নং ৭২৫৪৬), উম্মে সালমা ( রেজিঃ নং ৭২৫৫৩)।
মাদরাসার প্রধান পরিচালক মাওঃ মুফতী নুর আহমদ জানান, শুধুমাত্র মহান রাব্বুল আলমীনের অশেষ রহমতে প্রতিবছর অত্র প্রতিষ্টানের সবক’টি কেন্দ্রীয় পরীক্ষায় অংশ গ্রহন করে এ কৃতিত্বের ছে। ধারাবাহিকতা রেখে আস।

উল্লেখ্য গত শিক্ষা বর্ষে বেফাকুল মাদারিসিল আরাবীয়া বাংলাদেশ (বেফাক) এর ৪১ তম কেন্দ্রীয় পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করে অভাবনীয় সাফল্য অর্জন করে স্টার মার্ক ( মমতাজ) সহ কেন্দ্রীয় পরীক্ষায় শতভাগ ফলাফল অর্জন করেছে ।

এবারের কেন্দ্রীয় পরীক্ষায় মুতাওয়াসসিতাহ ( হাস্তুম) জমাতে ১৫ শিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করেছিল।

পাশের হার শত ভাগ। তার মধ্যে ১জন স্টার মার্ক, ১০ জন প্রথম বিভাগ ( জায়্যিদ জিদ্দান) ও ৪ জন ২য় বিভাগ (জায়্যিদ) এ উত্তীর্ণ হয়েছিল।
দেওবন্দী সিলসিলার অনুসারী বেফাকুল মাদারিসিল আরাবীয়া বাংলাদেশ (বাংলাদেশ কওমী মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড ) বেফাক সিলেবাস ও নূরানী তা’লিমুল কোরআন বোর্ড চট্রগ্রাম, বাংলাদেশ এর সিলেবাসভুক্ত এই মাদরাসাটি কেন্দ্রীয় পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের প্রথম থেকেই প্রতি বছর ধারাবাহিক সফলতা অর্জন করে আনছে।
এই ঈর্ষনীয় সাফল্য অর্জনে মহান আল্লাহ তা’য়ালার শুকরিয়া আদায় করে মাদরাসার মুহতামিম আলহাজ্ব মাওলানা মুফতী নুর আহমদ বলেন, ‘এটা মহান মহান আল্লাহ তা’য়ালার অশেষ অনুগ্রহ। এই সাফল্য আমরা আনতে পারিনি । তিনি মেহেরবানী করে দিয়েছেন। আমাদের পক্ষ থেকে সাধ্যাতীত প্রচেষ্টা ছিল। তিনি আমাদের প্রচেষ্টা কবুল করেছেন। এ জন্য আমি মহান আল্লাহ তা’য়ালার দরবারে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি- আলহামদু লিল্লাহ।
তিনি এই সাফল্যের কৃতিত্ব মাদরাসার সংশ্লিষ্ট উস্তাদগণ ও পরিচালনা কমিটির বলে দাবী করেন। তিনি আরো বলেন, এই সাফল্যের কৃতিতের¡ দাবীদার মাদরাসার সকল উস্তাদগণের। যাদের নিরলস প্রচেষ্টায়, সার্বক্ষণিক নেগরানী এবং অক্লান্ত পরি¤্রমের ফলে আমাদের ছাত্ররা এ সফলতা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।
ছাত্রদের প্রতি উপদেশ প্রদান করে তিনি আরো বলেন, “আগামীতে ও তোমরা এধারাবাহিকতার জন্য নিজেদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবে । তোমাদেরকে দৃঢ় প্রত্যয় নিয়ে অভিষ্ট লক্ষে এগিয়ে যেতে হবে। তবেই সফলতা তোমাদের পদচুম্বন করবে এবং অন্যান্য শিক্ষার্থীরা তোমাদের পথ অনুসরনে প্রেরণা যোগাবে।

কক্সবাজার জেলার অন্তর্গত টেকনাফ উপজেলায় অবস্থিত সাবরাং দারুল উলুম বড় মাদরাসা ও এতিমখানা, ফোরকানিয়া, নুরানী, হিফজ বিভাগ ও কিতাব বিভাগ সহ জমাতে উলা ( মিশকাত) পর্যন্ত প্রায় ৩৫ জন শিক্ষক/ কর্মচারী দিয়ে এ প্রাতিষ্ঠানটি শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করছে । এছাড়া নারী শিক্ষার জন্য রয়েছে সাবরাং খদিজাতুল কোবরা (রাঃ) মহিলা মাদরাসা নামে আলাদা একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান। যেখানে স্থানীয় নারী শিক্ষার্থীরা সম্পুর্ন পর্দা সহকারে মহিলা শিক্ষিকা দ্বারা দ্বীনি শিক্ষা গ্রহন করছে। নুরানী শিক্ষা বিভাগ সুত্রে জানা ২০১৯ শিক্ষা বর্ষে ভর্তি কার্যক্রম চলছে, চলবে মাসব্যাপী।
আগ্রহী ছাত্র/ছাত্রীদের অভিবাবকগণ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সহ মাদরাসা অফিসে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে। গরীব অসহায় শিক্ষার্থীদের সম্পুর্ন খরছ মাদরাসা কর্তৃপক্ষ বহন করে থাকে।
সাবরাং দারুল উলুম বড় মাদরাসা ও এতিমখানা ১৯৭৪ ইং সনে স্থাপিত হয়ে অদ্যবদি দেশ ও জাতির ধর্মীয় সেবার পাশাপাশি সমাজ সেবা মূলক কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। বিগত শিক্ষা বর্ষে অত্র মাদরসায় নূরানী বিভাগ, হেফজ বিভাগ ও জামাতে উলা পর্যন্ত কিতাব বিভাগে প্রায় সহ¯্রাধিক ছাত্র/ছাত্রী দৈনন্দিন দ্বীনি শিক্ষার পাশাপাশি আধুনিক শিক্ষা গ্রহণ করে আসছে।

মতামত...