,

‘ওসি প্রদীপ কুমার দাশ আওয়ামী লীগের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করছে, তাকে প্রত্যাহার করতে হবে’

ইমাম খাইর, কক্সবাজার ::

টেকনাফ মডেল থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ সরকারী দায়িত্ব পালনের নামে আওয়ামী লীগের এজেন্ডা বাস্তবায়ন করছে বলে অভিযোগ তুলেছেন কক্সবাজার জেলা বিএনপির সভাপতি ও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্ট মনোনীত প্রার্থী শাহজাহান চৌধুরী।
শনিবার (১ ডিসেম্বর) দুপুরে জেলা বিএনপি কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে শাহজাহান চৌধুরী এ অভিযোগ তুলেছেন। সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের স্বার্থে ‘বিতর্কিত’ ওসি প্রদীপ কুমার দাশকে শীঘ্রই প্রত্যাহার দাবী জানান তিনি।
শাহজাহান চৌধুরী বলেন, ওসি প্রদীপ কুমার দাশ প্রকাশ্যে সরকারী দলের ক্যাডারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন। সরকারী দায়িত্বজ্ঞান ভুলে গিয়ে আওয়ামী লীগের এজেন্ডা বাস্তবায়নে নেমেছেন। প্রশাসনের কর্তাব্যক্তি হয়ে তিনি নিজেই নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ নষ্ট করেছেন। প্রতিপক্ষ রাজনৈতিক দল দমনই যেন এখন তার মূল টার্গেট।
তার দাবী, ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত বিএনপির নেতাকর্মীদের এলাকায় না থাকতে ভয়ভীতি প্রদর্শন করছেন ওসি প্রদীপ কুমার দাশ।
গণমাধ্যমের দৃষ্টি আকর্ষণ করে শাহজাহান চৌধুরী বলেন, আগামী ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। নির্বাচনকে অংশগ্রহণমূলক করতে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট এর অধীনে বিএনপিসহ ২০ দলীয় ঐক্যজোটের শরীকরা মনোনয়নপত্র দাখিল করেছে। সাধারণ মানুষের মাঝে ভোটের আগ্রহ তৈরী হয়েছে।
পরিতাপের বিষয়, আমরা যখন নির্বাচনে যাচ্ছি ঠিক তখনই আওয়ামী লীগ তাদের নতজানু প্রশাসনকে নগ্নভাবে ব্যবহার করছে। ইসির নির্দেশনা থাকলেও তা অমান্য করে রাজনৈতিক মামলা অব্যাহত রেখেছে। বিএনপিসহ জোটের নেতাকর্মীদের বাসাবাড়ীতে তল্লাসী, ভাঙচুর, লুট চালাচ্ছে। সাজানো মামলা দিয়ে আমাদের নেতাকর্মীদের ঘরছাড়া করার নতুন পাঁয়তারা শুরু করেছে। তপসীল ঘোষণার পর ১০ নভেম্বর সাড়ে তিনশ জনের নামে টেকনাফ থানায় পৃথক দুইটি গায়েবী মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। যার নং-জিআর ৬৮৫/১৮ ও জিআর-৬৮৬/১৮।
তিনি বলেন, বিগত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী ও উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আবদুল্লাহ, জেলা বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য সুলতান আহমদ বিএ, ওমর হাকিম মেম্বারসহ সিনিয়র নেতাকর্মীদের বাসাবাড়িতে গিয়ে সাংসদ আব্দুর রহমান বদি নিজেই প্রাণনাশের হুমকি ধমকি দিচ্ছেন। ওসি প্রদীপ কুমার দাশের পরিকল্পনায় নিজেরাই ঘটনা তৈরী করে বিএনপিকে দমন নিপীড়নের চেষ্টা করছেন।
গত শুক্রবার (৩০ নভেম্বর) দিবাগত রাতে টেকনাফের হোয়াইক্যংয়ে স্থানীয় এমপি আব্দুর রহমান বদির গাড়ীতে যে হামলা, ভাঙচুরের খবর প্রকাশ হয়েছে, তা সত্যি দুঃখজনক বলে জানিয়েছেন বিএনপি নেতা শাহজাহান চৌধুরী। এমন ঘটনা অনভিপ্রেত ও নিন্দনীয় বলে তিনি মনে করেন।
তবে, ঘটনাটি সম্পূর্ন পরিকল্পিত ও সাজানো নাটক বলে মন্তব্য করেন শাহজাহান চৌধুরী।
দলীয় নেতাকর্মীদের মাঠছাড়া করতে এবং নির্বাচনী ফায়দা লুটতে ঘটনাটি ঘটানো হয়েছে বলে তিনি মনে করেন।
শাহজাহান চৌধুরী অভিযোগ তুলেন, ওসি প্রদীপের নেতৃত্বে টেকনাফ উপজেলা যুব দলের সাধারণ সম্পাদক জোনায়েদ আহমদ চৌধুরীর বাড়ীতে শুক্রবার দিবাগত রাত দেড়টায় পুলিশ ব্যাপক তল্লাসি, ভাঙচুর ও লুটতরাজ চালায়। ঘরের দারোয়ানকে বেঁধে রেখে ঘর ভাঙচুর ও কাজের মেয়ের সাথে অশুভন আচরণ করে। জোনায়েদ আহমদ চৌধুরীকে খোঁজে অশালীন গালমন্দ করে। পরিধেয় পোষাক, স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ টাকা লুট করে নিয়ে যায় পুুলিশ।
বিএনপির প্রার্থীর অভিযোগ, আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য আব্দুর রহমান বদি ও তার পরিবারের অন্তত ২৫ জন রাষ্ট্রীয় তালিকায় শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী। পুলিশী নিরাপত্তায় এসব মাদক ব্যবসায়ীকে সাথে নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণায় নেমেছে আব্দুর রহমান বদি।
মাদক ব্যবসায়ীদের গ্রেফতার নিশ্চিত করে এলাকায় নির্বাচনী পরিবেশ সৃষ্টির দাবী করেন শাহজাহান চৌধুরী। অন্যথায় উদ্ভুত রাজনৈতিক পরিস্থিতির সকল দায়দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট প্রশাসন ও নির্বাচন কমিশনকে বহন করতে হবে তিনি জানান।
শাহজাহান চৌধুরী প্রশ্ন করেন, এটা কি পরিকল্পিত নির্বাচন? কেন এমন আচরণ? নানা কারণে সরকারি দলের এমপির ‘প্রসিদ্ধি’ রয়েছে। সেভাবেই তিনি এগিয়ে যেতে চাচ্ছেন। একটা দুষ্টচক্রের হাতে কেন এলাকাবাসী জিম্মি থাকবে?
জুনাইদ আলী চৌধুরীর বাড়ির পাশে পুলিশ ফাঁড়ি রয়েছে। কোন মানুষ ঘটনাটি ঘটালে পুলিশ কেন গেলনা? নির্বাচন কমিশন, রিটার্নিং কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্টদের অভিযোগগুলো লিখিত জানাবো।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন- জেলা বিএনপির সিনিয়র সহসভাপতি কুতুবদিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এটিএম নুরুল বশর চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট শামীম আরা স্বপ্না, দপ্তর সম্পাদক ইউসুফ বদরী, জেলা শ্রমিক দলের সভাপতি রফিকুল ইসলাম, এডভোকেট মোহাম্মদ আবদুল মন্নান, এডভোকেট মুহাম্মদ আবু ছিদ্দিক ওসমানী, উখিয়া উপজেলা বিএনপির সভাপতি সরওয়ার জাহান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক সুলতান মাহমুদ চৌধুরী, বিএনপি নেতা এম মোক্তার আহমদ, এডভোকেট হাসান সিদ্দিকী, রাশেদুল করিম মার্কিন, কক্সবাজার পৌরসভার কাউন্সিলর নারীনেত্রী নাসিমা আকতার বকুল, জেলা ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি রাশেদুল হক রাসেল প্রমুখ।

মতামত...