,

চট্টগ্রাম ভার্সিটির শাটল ট্রেনে কাঁটা পড়ে অধ্যয়নরত টেকনাফের রবিউলের দু‘পা বিচ্ছিন্ন

হুমায়ূন রশিদ / আজিজ উল্লাহ :

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত এক ছাত্র শাটল টেনে কাঁটা পড়ে দুই পায়ের গোড়ালি বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। সহকর্মীরা তাকে দ্রুত উদ্ধার করে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে চমেকে ভর্তি করে। সে এখন চিকিৎসাধীন অবস্থায় জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে রয়েছে।
জানা যায়, ৮ আগষ্ট সকাল সাড়ে ৮টারদিকে চট্টগ্রাম নগরীর ২নং ষোল শহর জংশনে বিশ^বিদ্যালয় পড়ুয়া দুই সহকর্মী শেখ আহমদ ও রবিউল আলম রবি নাস্তা করে জংশন পার হওয়ার পথে কোন সংকেত বা শব্দ ছাড়াই আকস্মিক বিশ্ববিদ্যালয়ে শাটল টেনে কাঁটা পড়ে। এতে তার পায়ের দুই গোড়াঁলি বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এসময় তার অপর সহপাঠী শেখ আহমদ, চুসাট সভাপতি জাহেদ হোছন পুলকসহ একদল শিক্ষার্থী তাকে দ্রুত উদ্ধার করে ইথিক হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়। এরপর চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের সার্জারী বিভাগের ২৬ কেবিনে ভর্তি করা হয়েছে। এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সে জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে চিকিৎসাধীন রয়েছে।
দূঘর্টনার কবলে পড়া রবিউল আলম রবি উক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে সমাজতত্ত্ব বিভাগের মাস্টার্স ফাইনাল বর্ষের ছাত্র ও টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা হোয়াব্রাং গ্রামের মোহাম্মদ হোছন এবং ফাতেমা খাতুন দম্পতির পুত্র। ৬ ভাই ১ বোনের মধ্যে সে ৪র্থ। সে পরীক্ষার অনুমতি পত্রের জন্য ২/৩ দিন ধরে বিশ্ববিদ্যালয় যাওয়া-আসা করছে কিন্তু শিক্ষার্থী আন্দোলনের কারণে তা ব্যাহত হয়। সর্বশেষ আজ সকালে অনুমতিপত্র আনতে যাওয়ার সময় দূঘর্টনার কবলে পড়েন। এই মর্মান্তিক দূঘর্টনার খবর ছড়িয়ে পড়ায় মা-বাবা, ভাই-বোন, আত্নীয়-স্বজন, বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষক, সহপাঠীদের মধ্যে শোকাবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়।

মতামত...