,

টেকনাফে মাদক বিরুধী অভিযানে ৬৫ জনকে আটক, ৩৩ জনকে ভ্রাম্যমান আদালতে সাজা

আমান উল্লাহ কবির ::

সীমান্তে মাদকের ভয়াবহ আগ্রাসন প্রতিরোধে মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে আসছে টেকনাফ ২বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের বিজিবি জওয়ানরা। ওই অভিযানে ইয়াবা গড ফাদারদের পাশাপাশি খুচরা বিক্রেতা, মাদকসেবী, পাচারকারীসহ ৬৫ জনকে আটক করেছে। ১ জুলাই থেকে গত চারদিনে ৬৫ জনকে আটক করলেও ৩২ জনকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। অপর ৩৩ জনকে নিয়মিত মামলা ও ভ্রাম্যমান আদালতে সাজা প্রদান করেছে। এর মধ্যে টেকনাফ উপজেলা হ্নীলা ইউনিয়ন পরিষদের ৩ নং ওয়ার্ডের মেম্বার ও সীমান্তের অন্যতম ইয়াবা ব্যবসায়ী শামশুল আলম বাবুল রয়েছে।
জানা যায়, চলতি মাসের ১ লা জুলাই হতে ৪ জুলাই পর্যন্ত টেকনাফ ২বিজিবি ব্যাটালিয়নের আওতাধীন বিওপি ক্যাম্প সমুহের অভিযানে ৬৫ জনকে আটক করা হয়। অধিকতর তদন্ত ও যাচাই-বাচাই করে টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট প্রণয় চাকমার ভ্রাম্যমান আদালতে ২৯ জনের ৮ জনকে ২ বছর, ১ জনকে ১ বছর, ৩ জনকে ৭ মাস, ১৬ জনকে ৬ মাস এবং ১ জনকে ২ মাস করে বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়। এছাড়া ৪ জনের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা দায়েরের পর টেকনাফ মডেল থানায় হস্তান্তর করা হয় এবং অপর ৩২ জনের বিরুদ্ধে গুরুতর অপরাধ প্রমাণিত না হওয়ায় সতর্ক করে ছেড়ে দেয়া হয়।
এদিকে বিজিবির মাদক বিরোধী অভিযানে অপরাধীসহ কতিপয় মানুষ আতংকিত হলেও মূল অপরাধী ছাড়া সাধারণ মানুষ রেহাই পাওয়ায় মানুষ স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছে।
আটককৃতদের মধ্যে কয়েকজন হচ্ছে, ফেনী ফুলগাজী এলাকার হাবিব উল্লাহর ছেলে মোঃ মিন্টু (৩৫), টেকনাফ নাইট্যং পাড়ার মৃত আবদুল জলিলের ছেলে মোঃ হামিদ (৩০), সাবরাং কুয়াংছড়ি পাড়ার বদিউর রহমানের ছেলে মো. আবু তাহের (৩৫), সাবরাং খুরেরমূখ এলাকার মৃত নুর আহমদের ছেলে কবির আহমদ (১৮), টেকনাফ সদর খাংকার ডেইলের মৃত আবদুর রহমানের ছেলে জিয়াফত উল্লাহ (৩২), হ্নীলা পূর্বপানখালীর মৃত মুজিবুল হকের ছেলে বাবুল (২৪)।
হ্নীলা ইউপি সদস্য ফুলের ডেইল এলাকার শামসুল আলম বাবুল (৩৮) ও আরেক ইয়াবা ব্যবসায়ী হ্নীলা পূর্ব সিকদার পাড়া এলাকার শামসুল আলমের ছেলে সাইফুল ইসলাম(২২)কে দুই বছর করে বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়।
এছাড়া টেকনাফ সাবরাং মুন্ডার ডেইল এলাকার আলী আহাম্মদের ছেলে নুরুল আজিম(১৯), পেন্ডল পাড়া এলাকার সুলতান আহাম্মদের ছেলে মোঃ আব্দুল্লাহ(২৬), হারিয়াখালী এলাকার মাহামুদের ছেলে আব্দুল করিম(৩৫), একই এলাকার মোঃ হোসনের ছেলে মোঃ নূরুল ইসলাম (৪৬), লাফার ঘোনা এলাকার মৃত আলী আহাম্মদের ছেলে মোঃ হাসান(৩৮), একই এলাকার মৃত আব্দুল গণির ছেলে মোঃ রফিক(৩০), টেকনাফ পৌরসভার উত্তর জালিয়াপাড়া এলাকার রুহুল আমিনের ছেলে সিরাজুল ইসলাম মুন্না(১৮), নাইট্যং পাড়া এলাকার আব্দুস সালামের ছেলে আব্দুল হক(৩১), অলিয়াবাদ এলাকার ছিদ্দিক আহাম্মদের ছেলে সৈয়দ করিম(২৫), উখিয়া বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পের নূর আহাম্মদের ছেলে আব্দু রশিদ(১৯), সিরাজ শেখের ছেলে বাচচু মিয়া (৩০)কে ছয় মাস করে বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়।
অন্যদিকে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর টেকনাফ সার্কেল কর্তৃক আটক টেকনাফ পৌরসভার পুরান পল্লান পাড়া এলাকার অলী আহাম্মদের ছেলে মোঃ নাজির হোসেন(৩২)কেও ছয় মাস কারাদন্ড প্রদান করা হয়েছে।
তবে র্শীষ ইয়াবা ব্যবসায়ী ও ইউপি সদস্যের বাবুলের বিরুদ্ধে থানায় মাদকসহ ৫টি মামলা রয়েছে বলে জানায় পুলিশ।
টেকনাফস্থ ২ বিজিবির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মো. আছাদুদ-জামান চৌধুরী জানায়, সাম্প্রতিক মাদকের ভয়াবহ আগ্রাসন প্রতিরোধে সরকারের জিরো টলারেন্স নীতিতে ২ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন কর্তৃক টেকনাফে মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করা যাচ্ছে। গত সোমবার থেকে মঙ্গলবার ভোররাত পর্যন্ত ২ বিজিবির অধিনায়কের নেতৃত্বে টেকনাফ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনা করে বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ী ও সেবনকারীকে আটক করা হয়। সীমান্তে মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রনে এবং যে কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে বিজিবি এ অভিযান অব্যাহত থাকবে। এতে তিনি সচেতনমহলের সহযোগীতা কামনা করেন।

মতামত...