,

রামুতে সন্ত্রাসীদের হাতে সেচ্ছাসেবক লীগ নেতা খুন

মোঃ আবুল কাসেম, রামু ::
কক্সবাজারের রামু জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ম আহবায়ক রমিজ আহমদ (৪০) দূর্বত্তের ছুরিকাঘাতে খুন হয়েছেন।
রবিবার (১ জুলাই) রাত সাড়ে ৭ টার দিকে উত্তর মিঠাছড়ি আশকরখীল কালুর দোকান ষ্টেশন এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
নিহত  রমিজ আব্দুল জোয়ারিয়ানলা ইউনিয়নের উত্তর মিঠাছড়ি ১ নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ পাড়ার বাসিন্দা সুলতান আাহমদের ছেলে।
নিহতের ছোট ভাই ডাঃ ছাবের আহদ জানান, তার বড় ভাই দুই সন্তানের জনক রমিজ আহমদ রবিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টার দিকে একই ইউনিয়নের আশকরখীল কালুর দোকান ষ্ঠেশনে  গ্রাম্য শালীসী  বৈঠকে গেলে অতর্কিত অবস্থায় স্থানীয় সন্ত্রাসী মুবিন, ইউনুচ, আব্বাস ও মিজনের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে তাকে  ছুরি আঘাত করে গুরুতর জখম করে। পরে খবর পেয়ে আমার ভাই রমিজ আহমদ উদ্ধার করে  প্রথমে রামু হাসপাতালে পরে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কতর্ব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষনা করেন।
স্থানীয় ইউপি সদস্য আবদুস ছালাম কালু ও প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে, সন্ধ্যায় কালুর দোকান স্টেশনে ইটভাটা মালিক আবদুল্লাহ কোম্পানীর সাথে ও দিল মোহাম্মদ নামের এক ইটভাটার মাঝির আর্থিক বিরোধ নিরসনে বৈঠক হওয়ার কথা ছিলো। এতে বিচারক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, সুলতান আহমদের ছেলে রমিজ আহমদ। ওই শালিস শুরুর আগে উত্তর মিঠাছড়ি উত্তর পাড়া এলাকার নজির আহমদের ছেলে মুবিন (২২) ও রমিজ আহমদ (২৫) ছুরি নিয়ে এসে রমিজ আহমদকে ছুরিকাঘাত শুরু করে। এসময় উপস্তিত জনতা আতংকিত হয়ে পড়ে এবং কেউ এতে বাঁধা দেয়ার সাহস পায়নি। এক পর্যায়ে হামলাকারিরা রমিজ আহমদের শরীরের বিভিন্নস্থানে একাধিক ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। পরে জনতা তাকে মুমুর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করে।
খবর পেয়ে রামু থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে যান। রামু থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ছানা উল্লাহ জানিয়েছেন, ওই এলাকায় একটি ইটভাটার লেনদেন সংক্রান্ত শালিস চলছিলো। সেখানে ২ যুবক এসে রমিজ আহমদকে ছুরিকাঘাত করে। পরে সে মারা যায়। তাদের মধ্যে আগে থেকেই বিরোধ ছিলো। এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। মৃতদেহ ময়নাতদন্তের জন্য রাতেই সদর হাসপাতাল মর্গে নেয়া হয়েছে।
এ বিষয়ে  রামু  উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক তপন মল্লিকের কাছে জানতে চাইলে তিনি  জানান, নিহত  রমিজ আহমদ জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়ন সেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহবায়ক ছিল। সে দলের জন্য নিবেধিত প্রাণ ছিলেন। আমরা হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবি করছি।
এদিকে রামু থানার ওসি তদন্ত  এস এম মিজানুর রহমান স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা রমিজ আহমদ নিহতের বিষয় নিশ্চিত করেছেন। খবর পেয়ে রামু থানার একদল পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে সন্ত্রাসীদের গ্রেফতারে অভিযান পরিচালনা করেছেন।  বর্তমানে লাশ কক্সবাজার সদর হাসপাতালে মর্গে রয়েছেন। এ ঘটনার পর থেকে এলাকায় ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে।

মতামত...