,

সাংবাদিক শফিউল্লাহ শফির উপর সন্ত্রাসী হামলা : মোবাইল ছিনতাই

সন্ত্রাসীদের গডফাদার সেলিমকে গণধোলাই দিলে পুলিশে দিয়েছে জনতা

বিশেষ প্রতিবেদক :p

সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছেন দৈনিক যুগান্তরের কক্সবাজার প্রতিনিধি ও স্থানীয় দৈনিক ইনানীর বার্তা প্রধান শফিউল্লাহ শফি। ঘটনার সাথে জড়িত সন্ত্রাসীদের গডফাদার সেলিম উদ্দিনকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছে এলাকাবাসী। শুক্রবার বিকেল ৪ টার দিকে কক্সবাজার শহরের বদরমোকাম এলাকার (কেন্দ্রীয় মহা-শ্মশানের পাশে) সাংবাদিক শফির বাসভবনে এই ন্যাক্কার জনক হামলার ঘটনা ঘটায় সংঘবদ্ধ সন্ত্রাসী দল। আহত অবস্থায় সাংবাদিক শফিকে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এঘটনায় সদর মডেল থানায় এজাহার দায়ের করা হয়েছে। এজাহার সূত্রে জানা যায়-সাংবাদিক শফিউল্লাহ শফি ওই এলাকায় জমি ক্রয় করে বসতবাড়ি নির্মাণের মাধ্যমে পরিবার নিয়ে স্থায়ী ভাবে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করে আসছে। সম্প্রতি শহরের সিটি কলেজ রোডের (সাহিত্যিকা পল্লী এলাকা) হাজী লাল মিয়ার পুত্র আবদুল মালেক শফির বাসার পানি চলাচলের নালা বন্ধ করে সে জায়গাটি এক ব্যক্তিকে বিক্রির পাঁয়তারা চালিয়ে আসছিল। এতে সাংবাদিক শফি বাধা দিলে তাকে প্রাণনাশের হুমকিও দেয় আবদুল মালেক। তারই ধারাবাহিকতায় শুক্রবার বিকেল ৪ টার দিকে আবদুল মালেকের ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী হিসেবে পটিয়া শাহ্ গদিয়া মার্কেটের পেছনের বাসিন্দা (বর্তমানে শহরের বাজারঘাটা) মৃত সুলতান আহমদের পুত্র মোঃ সেলিম, তার বড় ভাই জসিম উদ্দিন, নতুন বাহারছড়ার জাহেদের নেতৃত্বে এবং মালেক ও ৬নং এলাকার আবছারের সহযোগিতায় নোহা মাইক্রোবাস ও মোটর সাইকেলে করে একদল সন্ত্রাসী অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে সাংবাদিক শফির বসতভিটায় প্রবেশ করে তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা করে। এতে সাংবাদিক শফির মাথা, কপালসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে রক্তাক্ত আঘাত করে। এক পর্যায়ে সন্ত্রাসীরা শফিকে শ্বাসরুদ্ধ করে হত্যার চেষ্টাও চালায়। শুধু সাংবাদিক শফিকে মারাত্মক আহত করে ক্লান্ত হয়নি সন্ত্রাসীরা। আহত করে যাওয়ার পথে শফির হাতে থাকা স্যামসাং গ্লাক্সি-এস-৮ প্লাস মডেলের ৮২ হাজার টাকা মূল্যের একটি মোবাইলও ছিনিয়ে নিয়ে যায়। সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যাওয়ার পথে এলাকাবাসী ধাওয়া করে সন্ত্রাসী সেলিমকে আটক করে গণধোলাই দিয়ে পুলিশের কাছে সোপর্দ করে। এদিকে শফির উপর হামলার ঘটনার খবর পেয়ে বিকেল থেকে হাসপাতালে ভীড় করতে থাকে সাংবাদিক, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীসহ সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ। এসময় তারা এঘটনার সাথে জড়িত সেলিমসহ সন্ত্রাসীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেন। এদিকে সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ফরিদ উদ্দিন খন্দকার সাংবাদিক শফির উপর হামলার ঘটনা স্বীকার করে বলেন হামলার সাথে জড়িত মূল নায়ক সেলিমকে স্থানীয় এলাকাবাসী আটক করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেছে। বাকী সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে বলেও জানান তিনি।

মতামত...