,

আন্দোলন গড়ে তোলায় ছাত্রলীগ অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে

ডেস্ক নিউজ::

মুক্তিযুদ্ধসহ দেশের সকল আন্দোলনে ছাত্রলীগের সক্রিয় ভূমিকার কথা উল্লেখ করে বাঙালির ইতিহাস ছাত্রলীগের ইতিহাস বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ শুক্রবার রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ২৯তম জাতীয় সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।
তিনি বলেন, বাংলাকে রাষ্ট্রভাষার মর্যাদা দিয়েছিল আওয়ামী লীগ। সেই সংগ্রামেও ছাত্রলীগ ছিল। ৬৯ এর গণঅভ্যত্থানে ছাত্রলীগের ভূমিকা আছে। আমিও ছাত্রলীগের একজন কর্মী ছিলাম। মুক্তিযুদ্ধেও এ সংগঠনের অবদান রয়েছে। আমাদের বহু সহকর্মী প্রাণ দিয়েছিল মহান মুক্তিযুদ্ধে। আন্দোলন গড়ে তোলায় আওয়ামী লীগের পাশাপাশি ছাত্রলীগ অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে।
ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের ত্যাগী হওয়ার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীদের স্যাক্রিফাইস করা শিখতে হবে। স্যাক্রিফাইস না করলে কিছু অর্জন করা যায় না। তোমরা এমন নেতৃত্ব খুঁজবে যারা সঠিকভাবে নেতৃত্ব দিয়ে তোমাদের এই সংগঠনকে শক্তিশালী করতে পারে, যাতে আগামীদিনে তোমরা দেশকে এগিয়ে নিতে পারো জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা হিসেবে।
এসময় ছাত্রলীগের নেতা থাকার বয়সসীমা ১ বছর বাড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ছাত্রলীগের নেতা থাকার বয়সসীমা ২৭ বছর করা হয়েছিল। দুই বছর মেয়াদী কমিটির মেয়াদ ৯ মাস বেশি হয়ে গেছে। আমি চাই না এই ৯ মাস বেশি হয়েছে বলে কেউ বঞ্চিত হোক। কাজেই ২৮ বছরের মধ্যে আছে যারা তারাই কমিটির সদস্য হবে। এছাড়া সমঝোতার মাধ্যমে ছাত্রলীগে নতুন নেতৃত্ব নিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি এসময়।

মতামত...