,

যৌতুক নিয়ে মিথ্যা মামলা করলে ৫ বছরের জেল

ডেস্ক নিউজ ::

যৌতুক নিয়ে মিথ্যা মামলার সর্বোচ্চ শাস্তি ৫ বছরের জেল বা ৫০ হাজার টাকা জরিমানা। এমন বিধান রেখে ‘যৌতুক নিরোধ আইন, ২০১৮’ এর খসড়া চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। গতকাল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে তার কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেন, নতুন একটি বিধান রয়েছে খসড়া আইনে। মিথ্যা মামলা করলে শাস্তি হবে। এক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ৫ বছরের কারাদন্ড বা সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা বা উভয় দন্ডে দন্ডিত হবেন।

আগে মিথ্যা মামলার জন্য আইনে কোন বিধান ছিল না। মিথ্যা মামলা- সংক্রান্ত শাস্তির ধারায় বলা হয়েছে, যদি কোনো ব্যক্তি অন্য কোনো ব্যক্তির ক্ষতি সাধনের অভিপ্রায়ে ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে এই আইনের অধীনে মামলা বা অভিযোগ করার জন্য ন্যায্য বা আইনানুগ কারণ নেই জেনেও মামলা বা অভিযোগ দায়ের করেন বা করান তা হলে তিনি বা তারা অনধিক ৫ বছর মেয়াদের কারাদন্ড বা অনধিক ৫০ হাজার টাকা জরিমানা বা উভয় দন্ডে দন্ডিত হবেন। শফিউল আলম বলেন, মূল আইনটি একটি অর্ডিন্যান্স ছিল- দ্য ডাউরি প্রহিবিশন অর্ডিন্যান্স। প্রথমে ১৯৮০ সালে একটি আইন করা হয়। সেটা ১৯৮২ সালে একটি অর্ডিন্যান্সের মাধ্যমে সংশোধন করা হয়। এরপর ১৯৮৪, ১৯৮৬ সালে সংশোধন করা হয় অর্ডিন্যান্স দিয়ে। এটাকে হালনাগাদ করার জন্য নতুন করে আইন করা হয়েছে। আগের আইনের ধারাগুলো নতুন আইনে মোটামুটি একই রকম আছে জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, সামান্য একটু পরিবর্তন করে এটাকে আনা হয়েছে। বিভিন্ন অপরাধের মূল দন্ড আগের মতোই আছে। তবে জরিমানার ক্ষেত্রে একটু পরিবর্তন আনা হয়েছে। তিনি বলেন, যৌতুক দাবি করার দন্ড আগে ছিল এক থেকে ৫ বছরের কারাদন্ড বা জরিমানা। এখন দন্ড আগের মতোই তবে জরিমানা ফিক্সড করে দেয়া হয়েছে- সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা। যৌতুক দেয়া বা নেয়ার শাস্তি ছিল এক থেকে পাঁচ বছর কারাদন্ড বা জরিমানা। তবে জরিমানা নির্দিষ্ট করা ছিল না। নতুন আইনে কারাদন্ড ঠিক রাখা হয়েছে। তবে জরিমানা সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা। শাস্তির ক্ষেত্রে যেখানে জরিমানার কথা বলা ছিল নতুন আইনে সেখানে পরিমাণ নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। সেটা ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত। শাস্তির ক্ষেত্রে জেল বা জরিমানা বা উভয় দন্ড হতে পারে। এদিকে মন্ত্রিসভা বৈঠকে বঙ্গোপসাগরের উপকূলবর্তী বিমসটেকভুক্ত ৭টি দেশের মধ্যে নৌপথে পণ্য পরিবহন ব্যবস্থা সহজ করতে ‘এগ্রিমেন্ট অন কোস্টাল শিপিং’ অনুমোদন পেয়েছে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেন, বিমসটেক সদস্যভুক্ত ৭টি দেশের মধ্যে স্বাক্ষরের জন্য একটি চুক্তির খসড়া অনুমোদন নেয়া হয়েছে। এটা হলে এই ৭ দেশের মধ্যে নৌ যোগাযোগ, বিশেষ করে পণ্য সামগ্রী নৌপথে বহন সহজতর হবে। এটি খুবই ছোট চুক্তি। ৭টি দেশই এই খসড়ায় একমত হয়েছে। বাংলাদেশ এটাতে সম্মতি জানিয়েছে। এদিনের মন্ত্রিসভা বৈঠকে ‘গ্লোবাল উইমেনস লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড পাওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানানো হয়। উল্লেখ্য, গত ২৭ এপ্রিল ‘গ্লোবাল উইমেনস লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড’ পান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।  এছাড়া মন্ত্রিসভা কবি বেলাল চৌধুরীর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছে। বৈঠকের শুরুতেই এই কবির মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে শোক-সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানায়। গত ২৪ এপ্রিল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৮০ বছর বয়সী কবি বেলাল চৌধুরী মারা যান। তিনি কিডনি জটিলতা, রক্তশূন্যতা ও থাইরয়েডের সমস্যায় ভুগছিলেন।

মতামত...