,

কোনো কোটাই থাকবে না, প্রয়োজন হলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখবেন: প্রধানমন্ত্রী

ডেস্ক নিউজ ::

সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, কোনো কোটাই থাকবে না। তারপরও প্রয়োজন হলে মন্ত্রিপরিষদ সচিব পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখবেন।

তিনি বলেন, যেহেতু মেয়েরাও কোটা চায় না, জেলা কোটা থাকার পরও জেলায় জেলায় কোটার বিরুদ্ধে আন্দোলন হচ্ছে; তাহলে কোটার দরকার নেই। কোনো কোটাই থাকবে না। প্রতিবন্ধী ও ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠির লোকদেরকে আমরা অন্যভাবে চাকরির ব্যবস্থা করতে পারবো।

বুধবার বিকেলে জাতীয় সংসদে জাহাঙ্গীর কবির নানকের এক সম্পুরক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, কোটা থাকলে বারবার আন্দোলন, এই ঝামেলার দরকার নেই। কোটা পদ্ধতিই বাদ।

শেখ হাসিনা বলেন, ৩৩তম বিসিএস মেধা থেকে ৭৭.৪০ শতাংশ নিয়োগ হয়েছে। ৩৫তম বিসিএসে ৬৭ শতাংশের বেশি এবং ৩৬ ৭০.৩৮ শতাংশ নিয়োগ হয়েছে। যারা বিসিএস দেয় তারা সবাই মেধাবী। সুতরাং ১০০ ভাগই বেধাবীরা নিয়োগ পান।

যারা আন্দোলন করছে তারা হয়তো বিষয়টি জানে না। আর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরাও যারা এই কোটা সংস্কারের পক্ষে কথা বলেন, তারা কি বিষয়টি জানেন না?- প্রশ্ন প্রধানমন্ত্রীর।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির বাড়িতে কারা হামলা করেছে, কাদের বাসায় লুটের মালামাল, তা শিক্ষার্থীদেরকেই খুঁজে বের করতে হবে। এরই মধ্যে গোয়েন্দারা খোঁজ-খবর নিতে শুরু করেছে।

ভিসির বাড়িতে পৈষাচিক, বর্ব হামলা কোনোভাবেই বরদাস্ত করা হবে না বলেও সংসদে জানান প্রধানমন্ত্রী।

মতামত...