,

পেকুয়ায় বেপরোয়া লিটন বাহিনীর গুলিতে ব্যাবসায়ী আহত

এম.দিদারুল করিম, পেকুয়া :

কক্সবাজারের পেকুয়ায় চাঁদা না দেওয়ায় এক ব্যাবসায়ীকে গুলি করেছে সন্ত্রাসীরা। রবিবার (১১ ফেব্রুয়ারী) সকাল সাড়ে ৮টায় উপজেলার সদর ইউনিয়নের গোঁয়াখালী বকসুচৌকিদার পাড়া নামক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এসময় সন্ত্রাসীরা ২রাউন্ড গুলি বর্ষণ করেছে বলে খবর পাওয়া গেছে।
স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, মরহুম ফরুখ আহমদ চৌধুরী পুত্র ফখরুল ইসলাম চৌধুরী মানিক তার পৈত্রিক সম্পত্তি ধানী জমিতে চাষের কাজ করেন। এসময় স্থানীয় লিটন বাহিনীর প্রধান লিটন ও তার সহযোগীরা সশস্ত্রে সজ্জিত হইয়া ঘটনাস্থলে গিয়ে ফখরুল ইসলাম চৌধুরী থেকে চাঁদা দাবী করে। এতে অপরাগত হইলে সন্ত্রাসী লিটন বাহিনীর লিটন এ ঘটনায়। লিটন বাহিনীর প্রধান লিটন হেলালী একই এলাকার হেলাল উদ্দিনের ছেলে। তার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি, জবর দখল ও অস্ত্র আইনে একাধিক মামলা রয়েছে।
লিটন বাহিনীর সদস্যরা ক্ষমতাসীন দলের নাম ভাঙ্গীয়ে প্রকাশ্যে দিবালোকে অস্ত্রের মহড়া দিয়ে এলাকায় ভয়ভীতি ছড়িয়ে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় রবিবার সকালে লিটন বাহিনীর সশস্ত্র সদস্যসহ একই এলাকার মরহুম এমদাদ মিয়ার পুত্র ছৈয়দুল হক, মরহুম শহিদুল ওসমানের ছেলে আরমানুল ওসমান, ভাড়াটিয়া নেজাম উদ্দিন আছু, শফিউল আলম গুলি বর্ষণের ঘটনা ঘটায়। তাদের অত্যাচারে অতিষ্ট হয়ে উঠেছে স্থানীয় বাসিন্ধা। প্রশ্ন উঠেছে তাদের খুঁটির জোর কোথায়?
তথ্যসংগ্রহে জানাযায়, জমির মালিক মরহুম ফরোখ আহমদ চৌধুরী গং এর আব্দু রহিম জানান, হঠাৎ ঘটনার দিন এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা আমাদের সামনে এসে জমিতে কোন ধরনের কাজ না করতে নিষেধ করে। এমনি জমিতে চাষ করতে হলে তাদের উপযোক্ত চাঁদা দিতে হবে। চাঁদা দিতে অপরগতা হইলে লিটন ক্ষুদ্ধ হয়ে ফখরুল ইসলাম(৫৫)কে লক্ষ করে গুলি করে। সাস্থানীয় এলাকাবাসী এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। স্থানীয় ও আহতের পরিবারের লোকজন তাকে কে উদ্ধার করে পেকুয়া হাসপাতালে ভর্তি করেন। এদিকে প্রাথমিক রিপোর্ট সংগ্রহ করতে গুলিবিদ্ধ ফখরুল ইসলামকে দেখতে পেকুয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসেন পেকুয়া থানার ওসি(তদন্ত) মনজুর আলম মজুমদার।
গুলিবিদ্ধ ফখরুল ইসলামের ছোট ভাই ফরহাদুল ইসলাম চৌধুরী চুট্টু সাংবাদিকদের জানান, লটন বাহিনীর প্রধান লিটন বিগত ১৭ জানুয়ারী ১৭ইং চাঁদা না দেওয়ায় স্বশস্ত্র লিটন, আলমগীর, আরমান ও আচু মিয়া আমাদের একটি চিংড়ি ঘের দখল নিতে ভাংচুরসহ ১৮ রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষণ করেন। ২১ জানুয়ারী আমাদের জায়গার স্থাপনা নির্মান করতে ওই লিটনের নেতৃত্বে তার সহযোগীরা ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে এলাকা ভয়ভীতি ছড়ায়। চাঁদা না পেয়ে দিন দিন বেপরোয়া হয়ে উঠে লিটন বাহিনী। গত ২৭ নভেম্বর সকাল ১১টায় আমাদের অপর একটি চিংড়ি ঘেরের কালভার্ট দখল নিতে আমার বসত ঘরে মহিলাদের লক্ষ করে গুলি বর্ষণ করে। ওই দিন তাদের গুলিতে একজন আহত হয়। এতেও লিটন ক্ষান্ত হননি। অবশেষে গতকাল রবিবার চাঁদা দাবী করতে এসে আমার বড় ভাইকে হত্যার উদ্দ্যেশে গুলি করে। এতে গুরুতর আহত হয় ফখরুল ইসলাম চৌধুরী মানিক।
পরে আহত ফখরুল ইসলাম চৌধুরী মানিককে কর্তব্যরত চিকিৎসক আশংখা জনক অবস্থায় দুপুর সাড়ে বারটার দিকে চমেক হাসপাতালে প্রেরণ করেছে। এব্যাপারে মামলার প্রস্তুতি চলছে।
এনিয়ে পুরো এলাকায় আতংকে রয়েছে এলাকাবাসী। বর্তমানে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। খবর পেয়ে পেকুয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছে।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে পেকুয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) জহিরুল ইসলাম খান, বলেন, এসআই সৌভ্রাত দাশ একদল পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন । সুত্রে জানা গেছে, গুলি বর্ষণ আহতের ঘটনায় আহতের পরিবারের পক্ষে একটি এজাহার দায়ের করা হয়েছে। তদন্ত পূর্বক আসামীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।

মতামত...