,

চকরিয়া পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামীলীগের এক ডজন মেয়র প্রার্থী : কে পাচ্ছেন নৌকা প্রতীক

জহিরুল ইসলাম, চকরিয়া :chakaria
দলীয় প্রতীকে এবারই প্রথম স্থানীয় নির্বাচন হওয়ায় এনিয়ে উত্তেজনা ভিন্নমাত্রা পেয়েছে। এ নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ করায় রাজনৈতিক মাঠও আরো বেশি গরম হয়ে উঠেছে। নির্বাচনের হাওয়ায় আওয়ামীলীগের তৃণমূল পর্যায়ের নেতা-কর্মীদের মধ্যে চাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে। নির্বাচন ঘিরে দেশব্যাপী একধরনের উৎসব শুরু হয়েছে। দেশের রাজনীতিতে নির্বাচন এমনিতেই একটি উৎসব। আর স্থানীয় সরকার নির্বাচন হলে সেই উত্তেজনা গ্রামগঞ্জের আনাচে-কানাচে ছড়িয়ে পড়ে। গ্রামাঞ্চলে শীতের আবহের সঙ্গে চায়ের কাপে রাজনৈতিক আলাপ চলছে বেশ। আগামী ৩০ডিসেম্বর সারাদেশে পৌর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত প্রথমদফার তফসিলে নাম নেই কক্সবাজারের তিনটি পৌরসভার। বর্তমান পৌর পরিষদের মেয়াদ শেষ হবে আগামী বছরের ১১মে। সেই হিসেবে সারাদেশের অন্যসব পৌরসভার সাথে নির্বাচন কমিশন দ্বিতীয়বারের তফসিলে ঘোষনা করবে এই পৌরসভার তফসিল। ফলে এখানে নির্বাচন অনুষ্টিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে আগামী বছরের মার্চ মাসে। এবারের পৌর নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামীলীগের এক ডজন মেয়র প্রার্থী মাঠে ময়দানে কাজ শুরু করেছেন। দলের মনোনয়ন নিশ্চিত করতে কাজ শুরু করে দিয়েছেন সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থীরা। দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার জন্য দলের জেলা, কেন্দ্রীয়সহ উচ্চ পর্যায়ে নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগও বৃদ্ধি করেছেন সম্ভাব্য প্রার্থীরা।
এদিকে চকরিয়া পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেতে একডজন মেয়র প্রার্থী মাঠে ময়দানে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। এরমধ্যে জেলা আওয়ামীলীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক চকরিয়া রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির টীম লিডার আলহাজ্ব নুরুল আবছার, চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি শ্রমিক নেতা ফজলুল করিম সাঈদী, পৌরসভা আওয়ামীলীগের সভাপতি জাহেদুল ইসলাম লিটু, চকরিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের অধ্যক্ষ ও পৌর আওয়ামীলীগের সাবেক আহবায়ক একেএম গিয়াস উদ্দিন, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা জামাল উদ্দিন জয়নাল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাবেক ছাত্রনেতা আলমগীর চৌধুরী, চকরিয়া পৌরসভা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মো.ওয়ালিদ মিল্টন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি বর্তমান কাউন্সিলর ছৈয়দ আলম, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের আহবায়ক আমিনুর রশিদ দুলাল, পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আতিকউদ্দিন চৌধুরী, সাবেক কাপ্তাই উপজেলা চেয়ারম্যান সাহাবউদ্দিন মাহমুদ ও সাংবাদিক এসএম সিরাজুল হক।
দীর্ঘদিন পর নির্বাচনী এই আমেজ উপভোগ করছেন ভোটাররাও। চিত্রই যেন বলে দিচ্ছে নির্বাচনের আর বেশি দিন বাকি নেই। প্রার্থীতা চূড়ান্ত না হলেও প্রাথমিকভাবে তারা জনসংযোগ করছনে এলাকার মোড়ে মোড়ে। নির্বাচনের সময় আরও কয়েক মাস বাকি রয়েছে। সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থীরা দলীয় মনোনয়ন পেতে শুরু করেছেন দৌড়ঝাপ। সেই সাথে ভোটারদের সাথে কুশল বিনিময় করে চলছেন। এরই অংশ হিসেবে সম্ভাব্য দলীয় সিনিয়র নেতাদের ছবি সম্বলিত ডিজিটাল ব্যানার টাঙ্গিয়েছেন পৌরএলাকার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে। সম্ভাব্য প্রার্থীদের কর্মী সমর্থকরা রয়েছে ফুরফুরে মেজাজে।
উপজেলার পাড়া-মহল্লা থেকে শুরু করে পৌর শহরের দলীয় কার্যালয়ে, ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান, চায়ের দোকানসহ সর্বত্রই প্রার্থীদের নিয়ে চুলচেরা বিশ্লেষণ করছেন তৃণমুল ভোটারগণ। কে হচ্ছেন এবারের পৌর মেয়র, কে পাবেন আ’লীগ দলীয় মনোনয়ন ? পৌরসভার সম্ভাব্য প্রার্থীরা সামাজিক ও ধর্মীয় অনুষ্ঠানসহ এলাকার বিভিন্ন কর্মকান্ডে অংশ নিচ্ছেন। এরা বিভিন্ন ভাবে নির্বাচনে প্রার্থীতার বিষয়ে ভোটারদের জানান দিচ্ছেন। সেই সাথে তৃণমুল নেতার্কমীদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করে চলছেন। প্রার্থীগণ চকরিয়া পৌরসভাকে আধুনিক পৌরসভা গড়ার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন। ##

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*