,

শীতের তীব্রতায় চকরিয়ায় জমে উঠেছে গরম কাপড় বিক্রি

এম মনছুর আলম, চকরিয়া []Mansur Chakaria Pic. 23.12.15
কক্সবাজার জেলার চকরিয়ায় উপজেলায় গেল কয়েকদিনে তীব্র শীতের সাথে মৃদ বাতাস প্রবাহিত হওয়ায় এ অঞ্চলের মানুষের গরম কাপড় কেনার ধুম পড়েছে। চকরিয়ার পৌর শহরের চিরিঙ্গায় বিভিন্ন অভিজাত মার্কেট ও চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের দুইপাশের ফুটপাতে দোকানগুলোতে জমে উঠেছে গরম কাপড় কেনাবেচার দৃশ্য লক্ষণীয়। গত কয়েকদিন ধরে তাপমাত্রা কমে যাওয়ায় শীতের তীব্রতা বেড়ে গেছে অনেকটা। তারই সাথে শীতের প্রকোপ বাড়ায় জনজীবন অসহনীয় হয়ে পড়েছে। বিকাল ঘুনিয়ে আসলে শীতের তীব্রতা শুরু হয়, সন্ধ্যা থেকে রাত যত গভীর হয় কনকনে শীতে মানুষ আগুনের কোপ জ্বালিয়ে শীত নিবারণ করে।
সরজমিন ঘুরে উপজেলার গ্রামীন এলাকার হাটবাজার ও পৌরশহরের  বিভিন্ন জনবহুল স্থানে ঘোরে দেখা যায়, পৌর শহরের থানার রাস্তার মাথা, বালিকা বিদ্যালয় সড়ক, পুরাতন বিমান বন্দর রোডসহ চিরিঙ্গা শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে মার্কেটের সামনে নি¤œ-মধ্যবিত্ত শ্রেণীর লোকজন, কর্মজীবিরা শীতের কাপড় কিনতে ভীড় করতে দেখা যায়। কয়েকদিনের তীব্র শীত ও গুটি-গুটির প্রভাবে শীতের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ায় শীর্তাথ মানুষ প্রচন্ড শীতের হাত থেকে রক্ষা পেতে নিজ-নিজ সামার্থনুযায়ী ভীড় জমাচ্ছে মার্কেট থেকে শুরু করে ফুটপাতের দোকানগুলোতে। বিশেষ করে মৌসুমি ভিত্তিক ফুটপাতের দোকানগুলোতে কেনাবেচা বৃদ্ধি পাওয়ায় সাথে সাথে বাড়ছে শীত বস্ত্রের দামও।
আমাদের দেশের নি¤œ আয়ের লোকজনের জন্য শীত অভিশাপ হলেও বিত্তবানদের জন্য শীতের কাপড়ের কোন অভাব নেই। তবে ফুটপাতের দোকানগুলোতে নি¤œশ্রেণীর লোকজনের পাশাপাশি অনেক বিত্তবানরাও ভীড় করছে চোখের পড়ার মত। তারাও নিজের পছন্দের শীতের পোশাক নিতে ছুটছে শহরের অভিজাত মার্কেটগুলোতে। ফুটপাতের দোকানগুলোতে নি¤œশ্রেণীর দারিদ্র মানুষেরা তাদের সামার্থ্যনুযায়ী পছন্দের শীতের কাপড় ক্রয় করছে।
চকরিয়া পৌর শহরের  ফুটপাতের কাপড় বিক্রেতা মো. গিয়াস উদ্দিন ও রুবেল বলেন, গত কয়েকদিন ধরে শীতের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ায় শীতের কাপড় কিনতে গ্রামীন এলাকার লোকজন ছুটে আসেছেন। এ বছর শীতের শুরুতে বেচাকেনা ভাল হলেও পরে কেমন হবে তা এখনো বলা যাচ্ছে না। তিনি আরো বলেন, প্রতিদিন চার হাজার থেকে ছয় হাজার  টাকা পর্যন্ত কাপড় বিক্রি হয়। আশা করছি সামনে আরো ভাল বেচাকেনা হবে।
জানতে চাইলে পৌর শহরের চিরিঙ্গা এলাকার আনোয়ার বেডিংয়ের মালিক দেলোয়ার হোছাইন বলেন, কয়েকদিনের শীতের তীব্রতা বেড়ে যাওয়ায় লেপ-তোষকের দোকানগুলোতে ভীড় জমেছে। এলাকার বিভিন্ন শ্রেণীপেশার লোকজন তাদের সামার্থ্য মত পছন্দের বিভিন্ন শীত নিবারণে লেপ কিনতে ভীড় করছে। এতে দোকানের কর্মচারীসহ সকলের কর্ম ব্যস্ততা বেড়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*