,

হোয়াইক্যংয়ের খারাংখালী-কম্বনিয়া সড়কের বেহাল দশা

সাদ্দাম হোসাইন, হ্নীলা  []

SAMSUNG CAMERA PICTURES

SAMSUNG CAMERA PICTURES

বর্তমান সরকারের উখিয়া-টেকনাফের এমপি আব্দুর রহমান বদি নিজে হোয়াইক্যংয়ের খারাংখালী-কম্বনিয়া পাড়া সড়কের মেরামতের ঘোষনা দিলেও এই পর্যন্ত কোন উন্নয়ন না হওয়ায় ক্ষোভে ফেটে পড়েছে জনগন। দীর্ঘদিন যাবত খারাংখালী- কম্বনিয়া পাড়া সড়কে বেহাল দশা বিরাজ করে অধিকাংশ স্থানই খানা-খন্দকে ভরপূর হয়ে যায়। এতে কারো মাথাব্যথা না থাকায় জনমনে ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। রাস্তার উপর গর্তের সৃষ্টি হওয়ায় সামান্য বৃষ্টিতে পানি জমে যায়। রাস্তার উভয় পাশে কোন প্রকার ড্রেন না থাকার কারণে স্থানীয় সাধারণ মানুষ অজ্ঞতাবশত বিভিন্ন পঁচনশীল দ্রব্য গর্তগুলোতে ফেলে। এ কারণে বৃষ্টি শুরু হতে না হতেই এসব পঁচনশীলদ্রব্য ছিটিয়ে বৃষ্টি শেষ হওয়ার পরও অনেকদিন দূর্গন্ধ বের হয়। তখন এ রাস্তাটি দিয়ে কেউ পায়ে হেঁটে যেতে পারে না। তখন চলাচলের একমাত্র বাহন হচ্ছে রিক্সা। এতে অবর্নণীয় দূর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে হাজার হাজার শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসীদের। এই অবননীয় দূর্ভোগ থেকে কিছুটা হলেও মূক্তি পেতে জনগন স্থানীয় সংসদ আব্দুর রহমান বদি এমপির নিকট এর প্রতিকার চাইলে খারাংখালী দারুত তাওহীদ বালিকা মাদ্রাসার সভার এ সড়কটি মেরামতের ঘোষনা দেন।
সরেজমিন পরিদর্শনে দেখা যায়, এ সড়কটি উপজেলার বৃহত্তম বাণিজ্যিক কেন্দ্র হোয়াইক্যংয়ের একটি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক। এ সড়ক দিয়ে প্রতিদিন অসংখ্য যানবাহন যাতায়াত করে। যানবাহনের বেশির ভাগই কৃষি পণ্য বহন করে থাকে। এই এলাকা হতে বিভিন্ন কৃষি পণ্য দেশের বিভিন্ন স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়। এছাড়া এলাকাটিতে রয়েছে বেশ ক’টি স্কুল-মাদ্রাসা। খারাংখালী পশ্চিম মহেশখালীয়া পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, খারাংখালী বাহারুল উলুম মাদ্রাসা। রাস্তাটি গুরুত্বপূর্ণ হওয়ার পরও বর্তমান সরকারের আমলে কোন উন্নয়ন হয়নি। খারাংখালী- কম্বনিয়া পাড়া সড়কটি গর্তে পরিপূর্ণ হওয়ায় কৃষকরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। রাস্তাটির গর্তের কারণে গাড়ীর মূল্যবান যন্ত্রাংশ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। ফলে গাড়ীর চালকসহ মালিকরা ওই রাস্তা দিয়ে যানবাহন চলবে শুনলেই গাড়ী ভাড়ায় দিতে চান না। এদিকে রিক্সা চালকরা ভাড়া বাড়িয়ে দিলে যায়, তা না হলে যেতে চায় না। কিন্তু এ গ্রামে অসংখ্য নেতা থাকার পরও সড়কটির কোন উন্নয়ন না হওয়ায় জনসাধারণের মধ্যে ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে ।
টেকনাফ উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ফরিদুল আলম জুয়েল জানান, বাংলাদেশ স্বাধীনের পর থেকে এই রাস্তাটির উভয় পাশে ড্রেন নির্মাণ করা হয়নি। এখন ড্রেনের কারণে এলাকাবাসীসহ বিপুল সংখ্যক শিক্ষার্থী ও মানুষকে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। তিনি বর্ষা আসার আগে অবিলম্বে রাস্তাটির উভয় পাশে ড্রেন নির্মাণ করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। স্থানীয় বাহারুল উলুম মাদ্রাসার শিক্ষক মুফিজ ইকবাল বলেন, খারাংখালী- কম্বনিয়া পাড়া সড়কে ড্রেন না থাকায় রাস্তার উপর ময়লা-আবর্জনাযুক্ত পানি থাকায় শিক্ষার্থীসহ সাধারণ মানুষের মধ্যে বিভিন্ন রোগ ছড়িয়ে পড়ছে। স্থানীয় বাসিন্দা ও হ্নীলা শাহ্ মজিদিয়া ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসার আলিমের ছাত্রী তসলিমা আক্তার জানান, খারাংখালী- কম্বনিয়া পাড়া সড়ক দিয়ে মাদ্রসায় যাওয়ার সময় আমাদের নাক বন্ধ করে যেতে হয়। এছাড়া গর্তের কারণে রিক্সায় চড়ে মাদ্রাসায় যাওয়ার সময় সারা শরীর ঝাঁকুনি দিয়ে উঠে। ভূক্তভোগী এলাকাবাসী ও শিক্ষার্থীরা হোয়াইক্যংয়ের খারাংখালী- কম্বনিয়া পাড়া সড়কের ভাঙ্গা গর্ত সংস্কার ও ড্রেন নির্মাণ করার জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদিসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের আশু দৃষ্টি কামনা করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*